Foto

‘তামিম মাঠে নামা মাত্রই আমরা এশিয়া কাপ জিতে গেছি’


এশিয়া কাপের শিরোপা লড়াইয়ের ফয়সালা হয়নি এখনও। তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার কাছে ক্রিকেট মানে সব সময় কেবল ব্যাট-বলের লড়াই নয়। প্রথম ম্যাচে ভাঙা আঙুল নিয়ে যখন ব্যাটিংয়ে নেমে গেলেন তামিম ইকবাল, মাশরাফির কাছে ট্রফি জয় হয়ে গেছে তখনই! এমনিতে ট্রফি জয়ের লড়াই শুক্রবার; দুবাইয়ে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। এই ফাইনালের আগে ভাসছে আরও অনেক ফাইনালের ছবি। গত জানুয়ারিতেই দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে হেরেছিল বাংলাদেশ।দেশের মাটিতেই হেরেছে ২০১২ এশিয়া কাপে, হেরেছে ২০১৬ এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি ফাইনালেও। গত মার্চে শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালেও হেরেছে বাংলাদেশ।


একেকটি ফাইনালের দুঃসহ স্মৃতি ফিরে ফিরে আসছে আরও একটি ফাইনালের আগে। তবে সেই সব স্মৃতিতে ভারাক্রান্ত নয় মাশরাফির মন। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেই যে সতীর্থের কাছ থেকে বড় উপহার পাওয়া হয়ে গেছে তার।

“প্রত্যেক ম্যাচেরই আলাদা গুরুত্ব থাকে। ত্রিদেশীয় সিরিজে যে ফাইনাল খেলেছি, বা ২০১২ এশিয়া কাপে যেটা খেলেছি, বা টি-টোয়েন্টিতে যেটা, সবগুলো কিন্তু একেক রকম পর্যায় পার করে এসে খেলেছি। এবার অবস্থা আরও কঠিন অবস্থা ছিল, কারণ একের পর এক খেলোয়াড় হারাচ্ছিলাম। দুর্ভাবনা ছিল মুশফিক খেলবে কি না। কিন্তু চোট নিয়েই খেলেছে, ভালোও করেছে। ওদের দেখেও অনেক কিছু শেখার আছে। আমার কাছে সত্যিকার অর্থে, তামিম যখন ভাঙা আঙুল নিয়ে মাঠে নেমেছে, তখনই আমি এশিয়া কাপ জিতে গেছি। ওটা আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল।”

প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের শুরুর দিকেই ব্যাটিংয়ের সময় আঙুলে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন তামিম। পরে স্ক্যান করে ধরা পড়ে আঙুলে চিড়। হাসপাতাল থেকে মাঠে ফেরেন স্লিংয়ে হাত ঝুলিয়ে। বাংলাদেশ শেষ দিকে দ্রুত উইকেট হারায়, দারুণ খেলতে থাকা মুশফিকুর রহিম হয়ে পড়েন একা। তামিম তখন শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে নেমে যান উইকেটে। এক হাতে ব্যাট করে সঙ্গ দেন মুশফিককে। দুর্দান্ত সেই জুটিতে আসে ৩২ রান। শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে শুরু করে বাংলাদেশ।

ভাঙা আঙুল নিয়ে তামিমের এক হাতে ব্যাট করা ক্রিকেটীয় বীরত্বগাঁথায় জায়গা পেয়ে গেছে চিরস্থায়ী। আলাদা মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটও।

Facebook Comments

" ক্রিকেট নিউজ " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ