Foto

শোভন-রাব্বানীর নেতৃত্বে ছাত্রলীগের প্যানেল


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারাই তাদের প্যানেল থেকে প্রার্থী হচ্ছেন। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলও গতকাল শনিবার থেকে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করেছে। ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন আজকালের মধ্যে তাদের প্যানেল চূড়ান্ত করবে। এসব প্যানেলে ঘুরেফিরে কয়েকজনের নামই উচ্চারিত হচ্ছে।


১১ মার্চ অনুষ্ঠেয় ডাকসু নির্বাচনে ছয়টি প্যানেল অংশ নিতে পারে বলে আভাস পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদভুক্ত সংগঠনগুলোর সঙ্গে প্যানেল করবে ছাত্রলীগ। পাশাপাশি টিএসসির সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোও তাদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে। দাবি-দাওয়া পূরণসাপেক্ষ মনোনয়নপত্র নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া ছাত্রদলের পরিকল্পনা রয়েছে একক প্যানেল নির্বাচন করার। বাম সংগঠনগুলোর দুই মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্য মিলে একটি প্যানেল দিতে পারে। পিছিয়ে নেই কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। এ ছাড়া ১৮ ফেব্রুয়ারি মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে একটি খসড়া প্যানেল ঘোষণা করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (বিসিএল-আম্বিয়া)। একই দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি ক্যাফেটেরিয়ায় সংবাদ সম্মেলনে একটি স্বতন্ত্র জোটেরও আত্মপ্রকাশ ঘটে। সব মিলিয়ে ছয়টি জোটই নির্বাচনে অংশ নিতে পারে। তবে এর বাইরে আরও কিছু প্যানেলের কথা শোনা গেলেও সেগুলো তেমন শক্তিশালী নয়।

ছাত্রলীগ : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারাই সংগঠনটির পক্ষ থেকে চূড়ান্ত মনোনয়ন পাচ্ছেন। কেন্দ্রীয় সংসদের ভিপি-জিএস পদে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর নাম চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ সভাপতির গঠন করে দেওয়া সমন্বয় কমিটি। কমিটির এক সদস্য ও ছাত্রলীগের শীর্ষ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে। প্যানেল চূড়ান্ত করে আজ অথবা আগামীকাল একসঙ্গে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবেন সংগঠনটির নেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের বাইরে প্রার্থী দিলে সংগঠনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডকে বুঝিয়েছেন সংগঠনের নেতারা। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে শীর্ষ নেতাদের মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সমন্বয় কমিটির এক সদস্য সমকালকে বলেন, ’গত শুক্রবার রাতে আমরা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। তিনি ভিপি-জিএস পদে শোভন ও রাব্বানীর নাম চূড়ান্ত করেছেন। এ ছাড়া অন্য পদগুলো আমাদের ঠিক করার নির্দেশনা দিয়েছেন।’

একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ২৫ জন হেভিওয়েট নেতা ডাকসুর বিভিন্ন পদে প্রার্থী হচ্ছেন। এ ছাড়া হল সংসদের ভিপি-জিএস পদেও মনোনয়ন পাচ্ছেন ছাত্রলীগের গত হল কমিটি, বিশ্ববিদ্যালয় ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা। হল সংসদে মূল্যায়ন করা হবে জুনিয়রদেরও। যারা বর্তমানে হলের নেতৃত্বে আসার চেষ্টা করছেন, দলে সক্রিয় রয়েছেন- তাদেরও সুযোগ দেওয়া হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদে ভিপি-জিএসসহ পদ রয়েছে ২৫টি। অন্যদিকে, হল সংসদে ভিপি-জিএসসহ পদ রয়েছে ১৩টি। সে হিসেবে ডাকসু ও হল সংসদে মোট পদ ২৫৯টি। এসব পদে মনোনয়ন পেতে মরিয়া সরকারদলীয় ছাত্র সংগঠনটির অনেক নেতা। এরই মধ্যে জোর তদবির শুরু করেছেন তারা। হাইকমান্ড ও সমন্বয় কমিটির সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। নিজেকে যোগ্য প্রমাণে সাংগঠনিক কর্মসূচিতে সক্রিয় রয়েছেন তারা।

জানা গেছে, ডাকসু নির্বাচনে ভিপি পদে ছাত্রলীগের মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও জিএস পদে সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। আর এজিএস পদে বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন- দু’জনের যে কোনো একজন মনোনয়ন পাচ্ছেন। এ ছাড়া অন্য পদগুলোতেও ছাত্রলীগের গত কমিটির নেতারা মনোনয়ন পাচ্ছেন। সে ক্ষেত্রে আলোচনায় আছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক উপকর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের (সাদী), আইন সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয়, সহসভাপতি আদিত্য নন্দী, উপ-অর্থবিষয়ক সম্পাদক তিলোত্তমা শিকদার, কর্মসংস্থানবিষয়ক সম্পাদক রাকিবুল হাসান রাকিব, শামসুন্নাহার হলের সভাপতি নিপু ইসলাম তন্বী, রোকেয়া হলের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার, জহুরুল হক হলের সাধারণ সম্পাদক আসিফ তালুকদার, কেন্দ্রীয় কমিটির সহসম্পাদক খাদেমুল বাশার জয়, উপসম্পাদক আরিফ ইবনে আলী, শেখ ইনান, ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি এস এম রাকিব সিরাজী, এসএম হলের সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেলসহ অনেকে।

জানতে চাইলে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন বলেন, আমরা তফসিলের তারিখের সঙ্গে সমন্বয় করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্যানেল ঘোষণা ও মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করব। তিনি বলেন, আমরা যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য একটা সমন্বিত প্যানেল উপহার দিতে চাই, সে ক্ষেত্রে ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ছাড়াও জোটভুক্ত সব রাজনৈতিক সংগঠন, টিএসসির সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন, অরাজনৈতিকভাবে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইভেন্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিত্ব করেছেন, প্রতিবন্ধী, পাহাড়ি, নারী শিক্ষার্থী সবাইকে নিয়েই আমাদের প্যানেল হবে।

সূত্র জানায়, নির্বাচনে সরকার সমর্থিত জোট ’সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’ভুক্ত সংগঠনগুলোর সঙ্গে প্যানেল দেবে ছাত্রলীগ। পাশাপাশি টিএসসিভিত্তিক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতাদের নিজেদের পক্ষে আনার প্রচেষ্টাও চালাচ্ছে সংগঠনটি। তবে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, ছাত্রলীগ থেকে কারা ডাকসু নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

ছাত্রদল : ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সাংগঠনিক মনোনয়ন ফরম বিতরণ করছে ছাত্রদল। সংগঠনের চূড়ান্ত মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে লড়তে আগ্রহীরা গতকাল শনিবার সকাল ১০টা থেকে বিএনপির পার্টি অফিসে দলীয় মনোনয়নপত্র উত্তোলন ও জমা দিতে পারছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ছাত্রদলের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার সিদ্দিকী। তিনি বলেন, সকাল ১০টা থেকে দলীয় মনোনয়ন বিতরণ ও জমা নেওয়া হচ্ছে। আগ্রহীদের মধ্য থেকে ডাকসু নির্বাচনের জন্য ছাত্রদলের চূড়ান্ত প্যানেল নির্ধারণ করা হবে। নির্বাচন করতে আগ্রহী প্রার্থীরা ১০ টাকার বিনিময়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করছেন। ছাত্রত্ব না থাকায় সংগঠনটির শীর্ষ চার নেতার কেউই নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। ফলে সংগঠনটির প্যানেল থেকে তাদের পরবর্তী নেতাদের বাছাই করতে হবে। এদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সাইদুর রহমান রাফসান, সূর্য সেন হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাহফুজ চৌধুরী, তৌহিদুল ইসলাম তৌহিদ, ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নুরে আলম ভূঁইয়া ইমন, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য বোরহান উদ্দীন নয়ন, জিয়া হল ছাত্রদলের সদস্য মো. ইমন, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের হাসান আল আরিফ প্রমুখ।

সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান বলেন, ছাত্রদলের প্যানেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে জনপ্রিয় এবং নেতৃত্বের গুণাবলিতে উত্তীর্ণরাই ডাকসু নির্বাচনে গুরুত্ব পাবেন।

বাম জোট : বাম সংগঠনগুলোর দুই মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাম্রাজ্যবাদবিরোধী ছাত্র ঐক্য একত্রে প্যানেল দিয়ে নির্বাচন করবে বলে জানা গেছে। তাদের উল্লেখযোগ্য প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী, বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক রাজীব দাস, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী, ছাত্র ফেডারেশনের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি উম্মে হাবিবা বেনজির, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হক ইশতিয়াক প্রমুখ।

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ :কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ আলাদা প্যানেলে নির্বাচনে যাবে। প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর, রাশেদ খান, ফারুক হাসান, বিন ইয়ামিন মোল্লা, সোহরাব হোসেন, মশিউর রহমান প্রমুখ।

Facebook Comments

" জাতীয় খবর " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ