Foto

শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকার চেষ্টা


বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘খানাখন্দে ভরা অসমতল মাঠে নির্বাচন করতে হচ্ছে। আমাদের ওপর সংঘাত-হামলা-মামলা হচ্ছে। একদিকে সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র নিয়ে আক্রমণ করছে, অন্যদিকে আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এখনো নির্বাচনের মাঠে রয়েছি।


আজ শনিবার সকালে বগুড়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। ফখরুল বলেন, ‘শেষ পর্যন্ত আমরা মাঠে থাকার চেষ্টা করব। কারণ, জনগণ আমারদের সঙ্গে রয়েছেন। ৩০ ডিসেম্বর ভোটবিপ্লবের মাধ্যমে জনগণই এ দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবেন।’ ২০–দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে বগুড়া শহরের এডওয়ার্ড পৌর পার্কে উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলেন হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজ জেলার ঠাকুরগাঁওয়ের পাশাপাশি বগুড়া-৬ (সদর) আসনেও প্রার্থী হয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্র আর প্রশাসনকে ব্যবহার করে সরকার আবারও একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে চায়। সারা দেশে এখন ভয়াবহ যুদ্ধাবস্থা। নির্বাচনের কোনো সুষ্ঠু পরিবেশ নেই। কোনো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড (সবার জন্য সমান সুযোগ) নেই। সব দলের জন্য সমতল ও সমান্তরাল মাঠ নেই। রাজনীতির ইতিহাসে নজিরবিহীন অসম নির্বাচন হচ্ছে। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দু-এক দিনের মধ্যে ইসিতে গিয়ে সারা দেশে মামলা-হামলার পরিস্থিতি তুলে ধরা হবে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) একটা “ঠুঁটো জগন্নাথে” পরিণত হয়েছে। আমার ওপর হামলা হয়েছে। ড. কামাল হোসেন-আ স ম আবদুর রবের মতো নেতার ওপর হামলা হয়েছে। ইসি নানাভাবে অভিযোগ করেও কোনো লাভ হয়নি। নির্বাচন কমিশন অসহায়। তাঁরা সরকারের নির্দেশের বাইরে কোনো কাজ করতে পারছেন না। সরকারি সংস্থা ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাঁদের নির্দেশ মানছে না। কমিশন নিজেদের অসহায়ত্বের কথা স্বীকার করেছেন।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সরকারের হয়ে কাজ করছে, সরকারের পক্ষে ভোট চাইছে। এত কিছুর পরও আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে মাঠে আছি। শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকব। কারণ, ৩০ ডিসেম্বর ভোটকেন্দ্রে উত্তাল জনতা সব অপশক্তি রুখে দেবে। সেদিন ভোটবিপ্লব সূচিত হবে।’ নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ না থাকলে শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকার কৌশল জানতে চান সাংবাদিকেরা। মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, সরকার ত্রাস সৃষ্টি করে, ভয় দেখিয়ে জনগণকে ভোটদানে বিরত রাখতে চায়। বিএনপির কর্মীদের কৌশল হবে জনগণের কাছে যাওয়া। ভীতি দূর করে সাহস জুগিয়ে জনগণকে ভোটকেন্দ্র পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া। জনগণ ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারলে ভোটবিপ্লব হবে। স্বৈরতন্ত্রের পতন হবে, গণতন্ত্র ফিরে আসবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘কোনো গণতান্ত্রিক দেশে গণতন্ত্র বিপন্ন হলে, স্বৈরাচার মাথাচাড়া দিলে বিশ্বের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলোর দায়িত্ব রয়েছে, বিপন্ন দেশটিতে ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে ভূমিকা রাখা। বিশ্বের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগুলোর কাছেও আমরা সেই জোরালো ভূমিকা রাখার বিষয়টিই প্রত্যাশা করি।’ সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বগুড়ায় বিএনপিতে কোনো কোন্দল নেই। তিনি দলীয় প্রধানের অবর্তমানে সেখানে ধানের শীষের প্রার্থী নন, তাঁর প্রতিনিধি হয়ে লড়ছেন। দলের প্রতিষ্ঠাতার জন্মভূমিতে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে ধানের শীষের প্রতি উত্তাল জনতার বাঁধভাঙা সমর্থন পাচ্ছেন। কোনো অপশক্তিই জনতার এ বিপ্লব রুখতে পারবে না। ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন তদারকির জন্য আমরা বিচারিক ক্ষমতাসহ সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি করেছিলাম। কিন্তু নির্বাচনে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে। এটা খুব একটা “ইফেক্টিভ” হবে না।’ আজকের সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদুর রহমান মান্না ছাড়া বগুড়ার অন্য ছয়টি আসনে ধানের শীষের প্রার্থীরা ছিলেন। এ ছাড়া ছিলেন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও বগুড়া পৌরসভার মেয়র এ কে এম মাহবুবর রহমান, জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীনসহ স্থানীয় নেতারা। পরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শহরতলির সাবগ্রাম বাজার থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো ধানের শীষের প্রচারণা শুরু করেন। আজ দিনভর এ প্রচারে অংশ নিচ্ছেন তিনি।

Facebook Comments

" রাজনীতি " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ