Foto

শিশুর ভাষা সমস্যা


ভাষার মাসে শিশুর ভাষা সমস্যা নিয়েই আলোচনা করা যাক। আজকাল অতিরিক্ত টিভি, ভিডিও গেম, মোবাইল, ল্যাপটপ দেখার ফলে বাচ্চাদের ভাষায় বিভিন্ন রকম সমস্যা হচ্ছে। একটি সমস্যা হচ্ছে, বাচ্চা কথা বলছে ঠিকই কিন্তু তার কথা কেউই বুঝছে না। একইসঙ্গে বাংলা, হিন্দি, ইংরেজি কার্টুন বা অনুষ্ঠান দেখার ফলে এমনটি হয়। এসবই বাচ্চা উ আ ই বিচিত্র ধরনের শব্দ করে কিছু বোঝাতে চায়। আবার আরেকটি সমস্যা হচ্ছে দেরিতে কথা বলা। অনেক ক্ষেত্রে এটি বংশানুক্রমিক হয়ে থাকে অর্থাৎ, খোঁজ নিয়ে জানা যাবে বাবাও একটু দেরিতে কথা বলেছিলেন, সেক্ষেত্রে চিন্তার কিছু নেই। অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই এটি ঠিক হয়ে যাবে।


কখন ডাক্তার দেখাবেন: গান বা চিৎকার করে কথা বললে শিশু যদি স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া না দেখায়, শিশু ছয় মাস বয়সে স্বতঃস্ফূর্তভাবে না হাসলে, ১২ মাস বয়সে অল্প অল্প বোল উচ্চারণ করতে না পারলে, ১৮ মাস বয়সে অন্তত একটি অর্থবোধক শব্দ (মা, বাবা, বল ইত্যাদি) বলতে না পারলে, দুই বছর বয়সের মধ্যে অন্তত দুটি শব্দ মিলিয়ে মনের ভাব প্রকাশ করতে না পারলে (যেমন : আমি খাব, পানি দাও), তিন বছর বয়সের মধ্যে তিন শব্দের পরিপূর্ণ বাক্য গঠন করে মনের ভাব প্রকাশ করতে না পারলে (যেমন- আমি ভাত খাব, মা পানি দাও ইত্যাদি ), তিন বছর বয়সী শিশু মা-বাবা বা অপরের নির্দেশনা বুঝতে পারে কি-না, শব্দের উচ্চারণ স্পষ্ট হচ্ছে কি-না, শব্দ জড়িয়ে যাচ্ছে কি-না বা বাক্যের মধ্য থেকে শব্দ বাদ পড়ে যাচ্ছে কি-না।

চিকিৎসা: এই বিষয়গুলোর ব্যাঘাত ঘটলে ভাষা না শেখার পেছনের কারণগুলো খুঁজতে হবে। এক্ষেত্রে যত দ্রুত সম্ভব বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে, প্রয়োজনে স্পিচ ও ল্যাগুয়েজ থেরাপি দেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে।

এ সময় যা করণীয়: শিশুকে সময় দিন, ওর সঙ্গে আরও বেশি কথা বলুন। একা থাকতে দেবেন না। ছোট ছোট শব্দ আগে শেখান। মা-বাবা, আশপাশের পরিচিত বস্তু, শরীরের ভিন্ন অঙ্গ, রঙ, আকার-আকৃতি এবং বিভিন্ন পশুপাখির নাম শেখান ও সেগুলো দেখান। ছবির বই, ছবির কার্ড, গুনতে শেখার খেলনা, ইত্যাদি দিয়ে খেলতে শেখান। টেলিভিশনে একাধিক ভাষার সংমিশ্রণে শিশু অভ্যস্ত হয়ে গেলে ভাষা শিখতে জটিলতা হতে পারে। শুরুতে একটি ভাষার টিভি দেখানো ভালো। শিশুকে নিজ ভাষার বর্ণমালা আগে শেখান। অন্য যে কোনো দ্বিতীয় ভাষা শিখতে বাধা নেই। সব শিশুর সক্ষমতা সমান নয়, তাই কেউ একটু তাড়াতাড়ি শিখবে, কেউ একটু দেরিতে শিখবে। শিশুকে প্রাক স্কুলে পাঠাতে পারেন। সেখানে ভাষা আর যোগাযোগের পাশাপাশি সামাজিক দক্ষতা বাড়বে। শিশুর আশপাশের পরিবেশকে উদ্দীপনামূলক রাখুন, যাতে শিশু চারপাশ থেকে উদ্দীপ্ত বোধ করে। সবার আগে মাতৃভাষায় শিক্ষা দিন, এতে করে তার পরবর্তী সময়ে অন্য ভাষা শেখাও সহজ হবে।

 

Facebook Comments

" লাইফ স্টাইল " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ