Foto

বহরমপুর আসনে হবে গুরু-শিষ্যের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই


পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরে আসনে এবার গুরু শিষ্যের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখবে জনতা। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের জাঁদরেল নেতা অধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে লড়ছেন তাঁরই শিষ্য তৃণমূলের অপূর্ব সরকার। আগামী ২৯ এপ্রিল এই আসনে ভোটগ্রহণ হবে। মূল লড়াইটা দ্বিমুখী হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।


পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুরের ভূমিপুত্র অধীর চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে কংগ্রেসের পতাকা নিয়ে লড়ছেন বিরোধীদের সঙ্গে। ২০১৪ সালে তিনি রাজ্য কংগ্রেসের সভাপতিও হন। ১৯৯৯ সাল থেকে এখনো তিনি সাংসদ। এর আগে ১৯৯৬ সালে ছিলেন বিধায়কও। ছিলেন জেলা পরিষদের সভাপতি। শুধু তাই নয়, ২০১২ সালে ভারতের মনমোহন সিং সরকারের আমলে তিনি কেন্দ্রীয় রেল প্রতিমন্ত্রীও হয়েছিলেন।

এবার সেই অধীর চৌধুরী বিরাট ঝড়ের মুখে পড়েছেন। শিষ্যের সঙ্গে লড়াইয়ের মুখোমুখি তিনি। তাঁরই ডান হাত অপূর্ব সরকার তাঁকে ছেড়ে তৃণমূলে চলে গেছেন। এই অপূর্ব সরকারকে তিনি তৈরি করেছেন। তিনবার তাঁকে মুর্শিদাবাদের কান্দি আসন থেকে বিধায়ক করেছেন। কান্দি কংগ্রেসের সভাপতিও ছিলেন অপূর্ব। তবে এসব ছেড়ে গত বছর তৃণমূলে যোগ দেন তিনি। এবারের লোকসভার ভোটে তৃণমূলের টিকিটে বহরমপুর আসনে লড়বেন।

এই বিষয়টিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে অধীর চৌধুরী বলছেন, তিনি হারলে রাজনীতি ছেড়ে দেবেন। বিভিন্ন জনমত সমীক্ষায় এই আসনটিকে কংগ্রেসের থলিতে রাখা হয়েছে।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে প্রতিপক্ষকে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৫৬৭ ভোটে হারিয়ে দেন অধীর চৌধুরী। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন তৃণমূলের প্রার্থী সংগীত শিল্পী ইন্দ্রনীল সেন। অধীর চৌধুরী পেয়েছিলেন ৫ লাখ ৮৩ হাজার ৫৪৯ ভোট। ইন্দ্রনীল পেয়েছিলেন ২ লাখ ২৬ হাজার ৯৮২ ভোট। এই আসনে অবশ্য তৃতীয় হয়েছিল বামফ্রন্টের শরিক দল আরএসপির প্রার্থী প্রমথেশ মুখার্জি। প্রমথেশ পেয়েছিলেন ২ লাখ ২৫ হাজার ৬৯৯ ভোট। আর চতুর্থ অবস্থানে ছিল বিজেপি প্রার্থী দেবেশ অধিকারী, পেয়েছিলেন ৮১ হাজার ৬৫৬ ভোট।

এবার এই আসনে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে পঞ্চমবারের জন্য লড়ছেন অধীর চৌধুরী। এই কংগ্রেস সাংসদ বলেন, "আমরা আমাদের মুর্শিদাবাদের তিনটি লোকসভা আসনে জয়ের জন্য নেমেছি। জিতব এবার। তিনি এ কথাও বলেন, আমাদের সঙ্গে আছে মানুষ। তৃণমূলের সঙ্গে আছে গুন্ডাবাহিনী আর পুলিশ। আমরা জনগণকে নিয়েই লড়াইতে নেমেছি। জয় আমাদের নিশ্চিত।"

অন্যদিকে অপূর্ব সরকার বলেছেন, এবার জনগণ অধীর চৌধুরীর ওপর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। তাই এই আসন এবার আমরা জিততে চলেছি। শুধু তাই নয়, বিরোধীদের দখলে থাকা এই মুর্শিদাবাদ জেলার তিনটি আসনই এবার জিতবে তৃণমূল।

এই আসনে বামফ্রন্ট প্রার্থী দেবে না বলে আগেই ঘোষণা দিয়েছিল। তবে গত শনিবার সিপিএমকে না জানিয়ে বামফ্রন্টের শরিক আএসপি এই আসনে ঈদ মোহাম্মদকে প্রার্থী করার কথা ঘোষণা করেছে। ফলে এই নিয়ে নতুন করে সংঘাত দেখা দিয়েছে বামফ্রন্টে।

মুর্শিদাবাদে মূলত বামফ্রন্টের শরিক আএসপি শক্তিশালী । এই অঙ্ক কষে বামফ্রন্টের সিদ্ধান্ত না মেনে আরএসপি এককভাবে এই আসনে প্রার্থীপদ ঘোষণা করেছে।

আগামী ২৩ মে ফলাফলেই জানা যাবে বিজয়ীর নাম।

 

Facebook Comments

" বিশ্ব সংবাদ " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ