Foto

বগুড়ার উপনির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার দাবি বিএনপির


বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনে সব কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।


তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী পরিত্যক্ত ইভিএম পদ্ধতিকে নিয়ে মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে সরকার এটি নিয়ে আবারও ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। তার প্রমাণ বগুড়ায় আসন্ন নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, ভোটাররা ইভিএম প্রক্রিয়ার জটিলতায় বেশি ভোট দিতে সক্ষম হয় না। অতীতে দেখা গেছে, ইভিএম জটিলতার জন্য ভোটাররা ভোট দিতে এসে লাইনে দিনভর দাঁড়িয়ে থেকে ভোট দিতে না পেরে ফিরে গেছেন।

’যেহেতু বগুড়াতে ধানের শীষের ভোট বেশি সেহেতু প্রতিটি কেন্দ্রেই পরিকল্পিতভাবে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারের আজ্ঞাবাহী নির্বাচন কমিশন।’

তিনি আরও বলেন, ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ না থাকলে ইভিএম প্রক্রিয়ায় আরও বেশি জালিয়াতি করা সম্ভব। এর আগে ভোটারের বদলে প্রিসাইডিং অফিসার ইভিএম মেশিনের বোতাম চেপে ভোট চুরি করেছেন।

ইভিএমের কোনো পেপার ট্রেইল না থাকায় ভোট দেয়া না দেয়ার কোনো প্রমাণ থাকে না বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

ভারতের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ভারতের অনেক জায়গায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ হলেও সেখানে সব বিরোধী দল এটির তীব্র প্রতিবাদ করেছে, হাইকোর্টে মামলাও আছে। যদিও সেদেশের ইভিএমে পেপার ট্রেইল ছিল।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের মূল উদ্দেশ্য হলো-ইভিএম মেশিন দিয়ে ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে দূরবর্তী স্থানে থেকেও ভোট ডাকাতি করা সম্ভব।

’ইভিএম নিয়ে সরকারের আগ্রহের আরেকটি মূল কারণ হচ্ছে- এ মেশিন ক্রয়ে ব্যাপক দুর্নীতির সুযোগ দিয়ে কিছু ব্যক্তিকে লাভবান করা। একটি ইভিএম মেশিনের দাম ৪০ হাজার টাকার মতো পড়ে, অথচ নির্বাচন কমিশন সেই মেশিন কিনছে দুই লাখ টাকায়।’

রিজভী বলেন, কৌশলে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ঘুষ দিয়ে মিডনাইট নির্বাচনকে সফল করা। আমি এই ইভিএম পদ্ধতির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তা প্রত্যাহারের জোর দাবি করছি।

Facebook Comments

" রাজনীতি " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ