Foto

প্রস্তাব বাতিল সত্ত্বেও পশ্চিমবঙ্গের নাম ‘বাংলা’ চান মমতা!


পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নাম পাল্টে ‘বাংলা’ করার প্রস্তাব বাতিল করে দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এখনই রাজ্যের নাম বদল করা সম্ভব নয়। এজন্য সংবিধান সংশোধন করা প্রয়োজন। কিন্তু এ সংক্রান্ত কোনো বিল এখনও লোকসভায় পেশ করা হয়নি।


কিন্তু প্রস্তাব বাতিল সত্ত্বেও পশ্চিমবঙ্গের নাম ’বাংলা’ করতে আরও একবার বিবেচনার আবেদন করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠিতে মমতা লিখেছেন, গত বছরের ২১ অগাস্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিবকে পশ্চিমবঙ্গের নাম বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজিতে ’বাংলা’ রাখার প্রস্তাবের ব্যাপারে অবগত করেছিলেন মুখ্যসচিব। সরকারের সব রকম উপদেশই গ্রহণ করেছে রাজ্য সরকার।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন, আরও একবার অনুরোধ করছি, পশ্চিমবঙ্গের মানুষের ইচ্ছার মর্যাদা দিক কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যের নামবদলের প্রস্তাব পাস হয়েছিল বিধানসভায়। নামবদল রাজ্যের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও পরিচিতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে করা হয়েছে। এতে প্রতিফলিত হবে রাজ্যবাসীর আকাঙ্ক্ষা। সংসদের চলতি অধিবেশনেই নাম বদলের প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হোক।

প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নাম পরিবর্তনের বিষয়টি কতদূর এগিয়েছে এ বিষয়ে সম্প্রতি সংসদে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে জানতে চান রাজ্যসভার সংসদ সদস্য ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়।

তার জবাবে লিখিতভাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রায় জানান, নাম পরিবর্তনের জন্য সংসদে বিল পেশ করে সংবিধানে সংশোধনী আনতে হয়। কিন্তু সেটা যেহেতু করা হয়নি, তাই নাম পরিবর্তনের বিষয়টি এখন আসছে না।

২০১৬ সালে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় রাজ্যের নাম পরিবর্তন সংক্রান্ত একটি বিল পাস হয়। এরপর তা দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য তৎকালীন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে অনুরোধ করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

রাজনাথ তখন বিষয়টি বিবেচনার আশ্বাসও দেন। কিন্তু টানা দ্বিতীয় মেয়াদে বিজেপি সরকার গঠনের পর নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ প্রস্তাবটি বাতিল করে দিলেন।

এই নিয়ে তিনবার রাজ্যের নাম বদলের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। প্রথমবার বাংলা, ইংরেজি ও হিন্দি ভাষায় ৩টি নাম বাছা হয়- বঙ্গ, বেঙ্গল ও বঙ্গাল। কিন্তু রাজ্যের সেই প্রস্তাবে কেন্দ্র জানায়, পৃথক নয়, সব ভাষাতেই এক নাম হতে হবে।

এরপর সর্বসম্মতির ভিত্তিতে ’বাংলা’ নাম রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে আবারও প্রস্তাব পাঠায় রাজ্য। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুক্তি, রাজ্যের প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ। সেখানেও নামে ’বাংলা’ রয়েছে। ফলে তা সমস্যা তৈরি করতে পারে।

তবে পাঞ্জাবের উদাহরণ তুলে ধরে রাজ্যের যুক্তি, পাকিস্তানেও ’পাঞ্জাব’ নামে একটি প্রদেশ রয়েছে। তাতে যদি কোনো সমস্যা না হয়ে থাকে, তবে এক্ষেত্রে সমস্যার আশঙ্কা অযৌক্তিক। এছাড়া প্রতিবেশী দেশের নাম ’বাংলা’ নয় বাংলাদেশ। পশ্চিমবঙ্গকে ইংরেজিতে ’ওয়েস্ট বেঙ্গল’ লেখা হয়- একই রাজ্যের দুই ভাষায় দুই নামও একটা সমস্যা।

Facebook Comments

" ইন্ডিয়ান সংবাদ " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ