Foto

প্রযুক্তি খাতে ৫০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় সম্ভব


বাংলাদেশের মানবসম্পদকে দক্ষ করে তোলার মাধ্যমে আগামী ২০২১ সালের মধ্যে তথ্য প্রযুক্তি খাতে ৫ বিলিয়ন নয়, ৫০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় সম্ভব বলে আশা প্রকাশ করেছেন বেসিস সভাপতি মোস্তফা জব্বার। শুক্রবার রাজধানীর আগারগাঁও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আযোজিত ডিজিটাল ওয়ার্ ২০১৭ মেলায় তিনি এ কথা বলেন। ডাটা সফট সিস্টেম বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুব জামান এর সঞ্চালনায় ‘৫ বিলিয়ন এক্সপোট’ শীর্কক এ সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান, ড্রিম৭১ এর সিইও রাশেদ কবির, ভারতের সুদীপ্ত পাল চৌধুরীসহ দেশের আইটি সশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


সেমিনারে মোস্তফা জব্বার আরও বলেন, আমাদের কাঁচামালের নাম মানবসম্পদ। এ সম্পদকে তথ্য-প্রযুক্তি খাতে কাজে লাগিয়ে আমরা দেশের রপ্তানি আয়ে বিপ্লব ঘটাতে পারি। কিন্তু আমাদের দুটি বড় সমস্যা আছে। আর তা হলো দক্ষ মানবসম্পদ। আর বিদেশি নির্ভরতা

আমাদের প্রযুক্তিগত ছোট একটা কাজ করতে গেলেও একজন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের ওপর নির্ভর করতে হয়। তাও আবার তাদের শিখিয়ে নিতে হয়। কিন্তু অন্য দেশের প্রাইমারি লেভেলের ছাত্ররাও তা পারে। অথচ আমরা প্রযুক্তিতে অন্যদেশের চেয়ে পিছিয়ে নেই। আছি দক্ষতা ও মানসিকতায়। কারণ আমরা প্রযুক্তিগত ব্যাপারে শুধু বিদেশের ওপর নির্ভর করি।তাই আমাদের নিজ দেশের প্রযুক্তির ওপর নির্ভর করলে এবং দক্ষতা বাড়ালে আগামী ২০২১ সালের মধ্যে প্রযুক্তি খাতে রপ্তানি আয় ৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে ৫০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় করা সম্ভব।

আর এ মেধার এ রপ্তানি আয়ের বাস্তব চিত্র দেখতে দেশের ব্যাংকিং সেবার মান বাড়াতে হবে। কারণ ব্যাংকিং বিড়ম্বনার কারণে মেধা সম্পদ রপ্তানির এ আয় হুণ্ডি পথে আসে। তাই সেটা দূর করতে হবে। তবে এ খাতে আমাদের রপ্তানি আয়ের চিত্র আরও বেড়ে যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাকের ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান বলেন, দেশের রপ্তানি আয় বাড়াতে ও তা ব্যাংকিং চ্যানেলে আনতে বাংলাদেশ ব্যাংক সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। সে ক্ষেত্রে দেশের রপ্তানি আয় যাতে হুন্ডিতে না আনতে হয়, সে জন্য রপ্তানিকারকদের দাবি বিবেচনায় আনা যা কী না ভেবে দেখা হবে। আর এসব মেধা রপ্তানিকারকদের অর্থায়নের ব্যাপারেও কেন্দ্রীয় ব্যাংক গুরুত্ব দিবে।

অনুষ্ঠান সঞ্চালক মাহবুব জামান বলেন, বিশ্বে এখন ফোরজি এর বিপ্লব চলছে। আর বাংলাদেশ ডিজিটাল হওয়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। আশা করি এ দুয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে বাংলাদেশ তথ্য-প্রযুক্তিতে এগিয়েই থাকবে।

সেমিনারে ড্রিম-৭১ এর রাশেদ কবির বলেন, আগামীতে ডিজিটাল ওয়াল্ড এ বিদেশি কোম্পানির জন্য প্লট বরাদ্দ রাখতে হবে। তারা আমার দেশে আসলে সেমিনারে অশ নিলে বুঝতে পারবে আমরাও প্রযুক্তিতে পিছিয়ে নেই।

Facebook Comments

" ব্যবসা ও বাণিজ্য " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ