Foto

প্যারিসে প্রতিবাদকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘাত


জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ফ্রান্সজুড়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ চলাকালে প্যারিসে প্রতিবাদকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদুনে গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করেছে পুলিশ। শনিবার দ্বিতীয়বারের মতো সাপ্তাহিক ছুটিতে রাজধানীর রাস্তায় নেমে আসে কয়েক হাজার প্রতিবাদকারী, তারা শঁজে-এলিজে অ্যাভিনিউতে পুলিশের একটি নিরাপত্তা বেষ্টনি ভাঙার চেষ্টা করলে সংঘর্ষ বেধে যায়, খবর বিবিসির। এ দিন প্যারিসের গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে তিনি হাজার পুলিশ কর্মকর্তা মোতায়েন করা হয়েছিল।


ইয়েলো জ্যাকেট নামে পরিচিতি পাওয়া এই প্রতিবাদে ডিজেলের ওপর বাড়তে থাকা করের বিরোধিতা করে মাঠে নেমেছে বিক্ষোভকারীরা। শনিবারের বিক্ষোভকে দ্বিতীয় প্রতিবাদ হিসেবে ঘোষণা দেয় সংগঠকরা।

শঁজে-এলিজে অ্যাভিনিউয়ের কাছে ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারি দপ্তর রয়েছে। বিক্ষোভকারীরা যেন এসব এলাকায় পৌঁছতে না পারে তার জন্য রাস্তায় ধাতুর ব্যারিকেড বসিয়ে অবস্থান নিয়েছিল পুলিশ।

কিছু বিক্ষোভকারী রাস্তার পাথর উঠিয়ে পুলিশের দিকে ছুড়তে শুরু করে, পুলিশকে লক্ষ্য করে পটকাও ছুড়ে মারে। এ সময় প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর পদত্যাগ দাবি করে শ্লোগান দেয় তারা।

তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করে ও জলকামান ব্যবহার করে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এ পর্যন্ত স্পর্শকাতর কোনো এলাকায় বিক্ষোভকারীরা প্রবেশ করতে পারেনি।

বিক্ষোভকারীরা ফ্রান্সের কট্টর-ডানপন্থি জাতীয়তাবাদী নেতা ম্যারি ল পেনের প্রভাবে প্রভাবিত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্তোফ ক্যাস্তেনার। কিন্তু এক টুইটে উল্টো ক্যাস্তেনারকে অসৎ বলে অভিযুক্ত করেছেন ল পেন।

স্থানীয় সময় সকাল ১১টা পর্যন্ত ফ্রান্সজুড়ে ২৩ হাজার লোক প্রতিবাদে শামিল হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ক্যাস্তেনার।

ইয়েলো জ্যাকেটের প্রথমদিনের প্রতিবাদে শামিল হওয়া লোকের তুলনায় এ সংখ্যা অনেক কম। এক সপ্তাহ আগে প্রথমদিনের প্রতিবাদে ফ্রান্সজুড়ে প্রায় দুই লাখ ৮০ হাজার লোকা রাস্তায় নেমেছিল।

Facebook Comments

" বিশ্ব সংবাদ " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ