Foto

নির্বাচনে এসেছি কিন্তু দাঁড়াতে দিচ্ছে না


বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, নির্বাচনে তাদের দাঁড়াতে দেওয়া হচ্ছে না।


বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, “এর আগে আওয়ামী লীগ বলেছে, আমরা নাকি নির্বাচনে যাইনি। এবার তো নির্বাচনে এসেছি, কিন্তু নির্বাচনে দাঁড়াতে দিচ্ছে না। টিকতে দিচ্ছে না।”

রাষ্ট্রযন্ত্রকে পরিকল্পিতভাবে ব্যবহারের অভিযোগ তুলে বিএনপি নেতা বলেন, “যে ভৌতিক মামলাগুলো দেওয়া হয়েছে নির্বাচনের তপশিল ঘোষণার আগে, সেগুলো অত্যন্ত পরিকল্পিত, যাতে বলা যায়, এগুলো ফৌজদারি মামলা, আমরা কী করব? এসব তামাশা জনগণের সাথে করা যায় না। জনগণ বোঝে।

“আমার বিরুদ্ধে যখন আপনার ট্রাক পোড়ানোর মামলা হয় তখন জনগণ কিন্তু বোঝে সেটা কেন হয়েছে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া যখন অবরুদ্ধ অবস্থায় গুলশানে আছেন, ঠিক তখনই কুমিল্লায় মামলা হয়। জনগণ কিন্তু সব বোঝে, কোনটা সত্য আর কোনটা মিথ্যা। আসলে এসব বিষয় হাস্যকর।”

নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে তিনি বলেন, “তারা বিব্রতবোধ করলে তো গোটা জাতি বিব্রত হবে। কারণ নির্বাচন কমিশনই তো সব ক্ষমতার অধিকারী। কিছু করা না করার মালিক তো নির্বাচন কমিশন। বিব্রত কে হবে? বিব্রত গোটা জাতি হয়ে গেছে।”

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফখরুল ঠাকুরগাঁও-১ ও বগুড়া-৬ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ঠাকুরগাঁও-১ আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী রমেশচন্দ্র বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ফখরুলের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ করেছেন।

এ বিষয়ে ফখরুল বলেন, “উনার কথা মেনে নেওয়ার কোনো কারণ নেই। আমি নিজে ডিসি ও এসপির সঙ্গে কথা বলেছি। আমি জানিয়েছে আমি বেগুনবাড়িতে আছি। সেখানে একটা পুলিশ ফোর্স উপস্থিত ছিল। তাই রমেশচন্দ্র সেন যেসব অভিযোগ তুলেছেন সা সঠিক নয়।”

গণমাধ্যম সম্পর্কে তিনি বলেন, “এত চাপের পরও গণমাধ্যম কিন্তু তার অবস্থানেই রয়েছে এবং মিডিয়া সত্যতা তুলে ধরছে। এটার জন্যই এতক্ষণ পর্যন্ত টিকে থাকা গেছে। না হলে টিকে থাকা যেত না।

“যা-ই হোক, আমি আপনাদের ধন্যবাদ জানাই সব সময় সত্যকে প্রকাশ করার ক্ষেত্রে অনমনীয় ছিলেন, করেছেন, করে যাচ্ছেন। আশা করি আপনারা নির্বাচনের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে, জাতির স্বার্থে সেই সত্যটাকেই তুলে ধরার চেষ্টা করবেন।”

শুক্রবার সকালে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য ফখরুল ঠাকুরগাঁও থেকে বগুড়ার উদ্দেশে রওনা হবেন বলে তিনি নিজে জানান।

জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সহ-সভাপতি সুলতানুল ফেরদৌস নম্র চৌধুরী, অর্থ-সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ, জেলা যুবদলের সভাপতি মহেবুল্লাহ চৌধুরী আবু নুর, ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী, সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান মিঠু, ঠাকুরগাঁও টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ফিরোজ আমিন সরকার, সাধারণ সম্পাদক তানভির হাসান তানু, ঠাকুরগাঁও অনলাইন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জিয়াউর রহমান বকুল, সাধারণ সম্পাদক মো. শাকিল আহমেদ মতবিনিময় সভায় ছিলেন।

Facebook Comments

" জাতীয় খবর " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ