Foto

দুদকের ৭০ ভাগ মামলার আসামি চুনোপুঁটি: ইকবাল মাহমুদ


দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ মামলার অসামিই চুনোপুঁটি। তাদের কারণেই দেশের ৮০ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনোভাবে দুর্নীতির শিকার। এই চুনোপুঁটিদের আইনের আওতায় আনার পাশাপাশি রাঘববোয়ালদের ওপরও নজরদারি করা হচ্ছে।


দুর্নীতি দমনে আইনজীবী ও বিচার বিভাগের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে এ কথা বলেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের মানিক মিয়া হলে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের উদ্যোগে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

দুর্নীতি দমন কার্যক্রম সফল করতে সমাজের সব স্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, অনেক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা, বিত্তবান ব্যবসায়ী, উচ্চপদের অনেক আমলার বিষয়েও দুদক অনুসন্ধান করছে। বড় দুর্নীতিবাজদের ধরার পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে ইকবাল মাহমুদ বলেন, গ্রামে বসবাস করা দেশের সাধারণ মানুষ সবচেয়ে বেশি হয়রানি ও দুর্নীতির শিকার। এসব দুর্নীতির অধিকাংশ ক্ষেত্রে চুনোপুঁটিরাই সম্পৃক্ত। ছোটো গাছ উপড়ে ফেলা যত সহজ, বড় গাছ উপড়ানো তত সহজ নয়। বট গাছ উপড়ানো অনেক কঠিন। তাই বলে যে রাঘববোয়ালদের ধরা হচ্ছে না তা কিন্তু নয়। চুনোপুঁটিদের সঙ্গে তাদেরও ধরা হবে।

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের সভাপতি অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু এমপি, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবি ব্যারিস্টার এম. আমীর-উল ইসলাম ও বিচারপতি মো. নিজামুল হক। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্যারিস্টার হাসান এম. এস. আজিম।


মনজিল মোরসেদ দুদকের উদ্দেশে বলেন, কমিশনের উচিত আদালতে সঠিকভাবে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া। তা না হলে বিচারকাজ সঠিকভাবে পরিচালিত হবে না। এতে নির্দোষ ব্যক্তিরা ফেঁসে যাবেন ও দোষীরা পার পেয়ে যাবেন। তিনি আরও বলেন, সরকারকেও বিচারকাজে সাহায্য করতে হবে। সরকারের এমন আইন করা উচিত নয়, যা বিচারকাজে বাধার সৃষ্টি করে।

’সরল মনে দুর্নীতি করলে সেটা অপরাধ নয়’- গণমাধ্যমে প্রকাশিত বক্তব্যের ব্যাখ্যা :সরল মনে দুর্নীতি করলে সেটা অপরাধ নয়- গণমাধ্যমে প্রকাশিত বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান। গত বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসক সম্মেলনের শেষ দিনে সচিবালয়ে ডিসিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। ওই সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ’সরল মনে দুর্নীতি করলে সেটা অপরাধ নয়’- এমন কথা গণমাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ায় বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এ প্রসঙ্গে ইকবাল মাহমুদ বলেন, সাংবাদিকদের একটি প্রশ্নের জবাবে কথাটি বলেছিলেন তিনি। এ নিয়ে বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের নিউজের ভিডিও রয়েছে। চাইলে কেউ সেটা দেখতে পারেন। সেখানে দুর্নীতির কোনো কথাই বলা হয়নি। এই কথাটি কোথা থেকে এলো সেটা তার বোধগম্য নয়। এর দায় গণমাধ্যমকর্মীদের। তিনি ওই বক্তব্যের আর ব্যাখ্যা দেবেন না। কেননা ভিডিওতেই এর ব্যাখ্যা রয়েছে বলে তার দাবি করেন তিনি।

Facebook Comments

" জাতীয় খবর " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ