Foto

ও তো খুব ভালো ছেলে : ব্রেনটনের দাদি


নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকার দুটি মসজিদে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ব্রেনটন ট্যারেন্টের হামলার বিষয়টি কোনোভাবেই বিশ্বাস করতে পারছে না তার পরিবার। এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই দাবি করেছেন তার দাদি জয়েস ট্যারেন্ট।


নাতির এই হত্যাযজ্ঞের প্রসঙ্গে দাদি বলেন, ’কী করে এটা হয়? আমি খুবই মর্মাহত (বিশেষ করে ব্রেনটন এ কাজ করেছে), ও তো খুব ভাল ছেলে। বছরে দুবার গ্র্যাফটনে পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে আসত ও।’

জয়েস আরও বলেন, ’বড়দিনের সময়েও তো দিব্যি ছিল ছেলেটা!’

ব্রেনটনের মা শ্যারন পেশায় একজন শিক্ষক। গত শুক্রবার হামলার সময় তিনি ইংরেজি ক্লাসে ছিলেন। পরে সাংবাদিকদের ফোনে ছেলের কথা জানতে পারেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, গতকাল পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের পর থেকে মেয়ে লরেনকে নিয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন তিনি। বাড়িতে একা পড়ে আছে পোষা কুকুরটি।

এদিকে গোয়েন্দারা জানাচ্ছেন, ২০১৭ সালের নভেম্বরে অস্ত্র কেনার জন্য ’এ’ ক্যাটেগরির লাইসেন্স পেয়েছিল ব্রেনটন। গত শুক্রবারের হামলায় ব্যবহৃত রাইফেলগুলো তার পরেই কিনেন তিনি।

গতকাল শনিবার ব্রেনটন ট্যারেন্টকে পাঁচ এপ্রিল পর্যন্ত রিমান্ড দিয়েছে ক্রাইস্টচার্চ আদালত। ব্রেনটনের কাছে লাইসেন্সকৃত অত্যাধুনিক পাঁচটি বন্দুক ও একটি আগ্নেয়াস্ত্র ছিল বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। বর্বরোচিত এ হত্যাকাণ্ডের পর দেশটির অস্ত্র আইনে পরিবর্তন আনার ঘোষণাও দেন তিনি।

গত ১৫ মার্চ শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে নারী, শিশুসহ ৫০ জন মুসল্লিকে হত্যা করা হয়। এই সন্ত্রাসী হামলার সময় আল নূর মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা। তারা মসজিদে ঢোকার কিছুক্ষণ আগে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। ফলে অল্পের জন্য বেঁচে যান টাইগাররা।

 

Facebook Comments

" বিশ্ব সংবাদ " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ