Foto

উচ্চতর কমপ্লায়েন্সের জন্য পোশাক খাতের ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ প্রয়োজন


বাংলাদেশের তৈরি পোশাক (আরএমজি) শিল্প খাত যাতে পুরোপুরি উচ্চতর মানে উন্নীত হতে পারে তার জন্য পোশাক খাতের ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনীম। মঙ্গলবার কার্ডিফে ওয়েলসের জাতীয় পরিষদে বক্তব্য দেওয়ার সময় তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন।


হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশের ৮৫ শতাংশ পোশাক কারখানা এরইমধ্যে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত হয়েছে, যে কারখানাগুলোর মান পরীক্ষা করেছে বৈশ্বিক বড় বড় খুচরা বিক্রেতা ও চেইন শপের আন্তর্জাতিক দুটি সংস্থা— অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স।

তাসনীম বলেন, উচ্চতর মান নিশ্চিত করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ এবং এটি করার জন্য তৈরি পোশাক খাতকে আরও বেশি অর্থ দিতে হবে।

এ সময় তিনি বাংলাদেশ ও ওয়েলসের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগের নতুন নতুন ক্ষেত্র খুঁজে বের করার পাশাপাশি পর্যটন ও ঐতিহ্য সহযোগিতার বৃহত্তর ক্ষেত্র হতে পারে বলে প্রস্তাব করেন।

ওয়েলসের ডেপুটি মিনিস্টার ও জাতীয় পরিষদের সদস্যবৃন্দ, ব্রিটিশ-বাংলাদেশি শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, উন্নয়নকর্মী ও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ’বাংলাদেশ- উন্নয়নের পথে সোনালী যাত্রা’ শীর্ষক গবেষণার ওপর আলোচনায় অংশ নেন। যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ’স্টাডি সার্কেল’ এই গবেষণা চালায়। এই সংস্থাটিই এই আলোচনার আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন স্টাডি সার্কেলের সভাপতি সৈয়দ মোজাম্মেল আলি।

ডেপুটি মিনিস্টার ও চিফ হুইপ জেইন হাট, স্বাস্থ্য সামাজিক সেবা বিষয়ক ডেপুটি মিনিস্টার জুলি মর্গান, কার্ডিফ সেন্ট্রাল অঞ্চলের জাতীয় পরিষদ সদস্য জেনি র্যা থবোন, দক্ষিণ ওয়েলস ইস্টের জাতীয় পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ আসগর, বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, কাউন্সিলর দিলওয়ার আলি এবং সাংবাদিক আনসার আহমেদ উল্লাহ এতে অংশগ্রহণ করেন।

Facebook Comments

" বিশ্ব অর্থনীতি " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ