Foto

ইভিএমের ‘কাজ দেখাতে’ কেনা ৪৬ কোটি টাকার ট্যাবও ব্যর্থ!


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ভালোভাবে কাজ করেনি। উপজেলা নির্বাচনে এই যন্ত্রটির সক্ষমতা বাড়াতে নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রায় ৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪২ হাজার ২০০ ট্যাব কিনেছে। কিন্তু ট্যাবও কাজ দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে।


গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে ইভিএমে ছয়টি আসনে ভোট নেওয়া হয়। কিন্তু সে সময় এই যন্ত্র নিয়ে নানা সমস্যা সামনে আসে। অল্প সময়ের মধ্যে ভোটের ফলাফল জানা যাবে বলা হলেও সেটিও সম্ভব হয়নি।

সম্প্রতি চারটি ধাপে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে দুটি উপজেলার ইভিএমে নেওয়া ভোটের তথ্য দ্রুত পাঠানোর জন্য সেখানে দায়িত্ব পালনরত নির্বাচন কর্মকর্তাদের ট্যাব দেওয়া হয়। কিন্তু প্রত্যাশাকে ভুল প্রমাণ করে সেই ট্যাব ইসির কাছে ভোটের ভুল তথ্য পাঠিয়েছে। ট্যাবের ভুতুড়ে এই আচরণ থেকে রক্ষা পেতে শেষ পর্যন্ত উপজেলার চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে এই যন্ত্রটি আর ব্যবহার করা হয়নি। ভবিষ্যতে এই যন্ত্রটি আর কোনো নির্বাচনে ব্যবহার করা হবে কি না তা নিয়েও সন্দেহ আছে। যে কারণে খোদ ইসিতে এখন আলোচনা, ৪৬ কোটি টাকা অপচয় করে কেন এই যন্ত্র কেনা হয়েছে। তবে যন্ত্রটি কেনার সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তারা আশাবাদী, ভবিষ্যতে ট্যাবগুলো কাজে লাগবে।

গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে ইসি দেড় লাখ ইভিএম কেনার জন্য ৩ হাজার ৮২১ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করে। সরকারের কাছ থেকে টাকা না পাওয়ায় তারা এখন পর্যন্ত সব ইভিএম কিনতে পারেনি। তবে ইসি সংসদ নির্বাচনের আগেই অনেকটা তড়িঘড়ি করে কিছু ইভিএম কিনে নেয়। বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি এসব ইভিএম সরবরাহ করে। বিএনপিসহ সব বিরোধী দল সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিরোধিতা করে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে তেমন কোনো আগ্রহ দেখানো হয়নি। শেষ পর্যন্ত সব দিকের রাজনৈতিক চাপ উপেক্ষা করেই ইসি ঢাকা-৬, ঢাকা-১৩, চট্টগ্রাম-৯, খুলনা-২, রংপুর-৩ ও সাতক্ষীরা-২ আসনে ইভিএম ব্যবহার করা হয়।

ইভিএমের গুণাবলি সম্পর্কে ইসি থেকে বারবার বলা হয়েছে, এই যন্ত্র ব্যবহার করা হলে জাল ভোট হবে না এবং ভোটের ফল বদলানো সম্ভব হবে না। এ ছাড়া নির্বাচনের ফল দ্রুততম সময়ের মধ্যে পাওয়া যাবে। কিন্তু ৩০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ শেষে রাতে দেখা যায়, ইভিএমের ফল সবার পরে এসেছে এবং সংশ্লিষ্ট আসনগুলোর ফলও ঘোষণা করা হয়েছে প্রায় সবার শেষে। জানা যায়, যন্ত্র বিকল হয়ে পড়ায় অনেক জায়গায় ভোট গ্রহণ শুরু করা হয় দুপুরের পর। অনেক জায়গায় যথাসময়ে ভোট গ্রহণ শুরু করা হলেও যন্ত্রটি মাঝপথে বিগড়ে যায়।

এই সমস্যাগুলো বিবেচনায় নিয়েই ইসি ৪২ হাজার ২০০ ট্যাব কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। এ জন্য চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি কম্পিউটার সার্ভিসেস লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এসব ট্যাব কেনার চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি ইতিমধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ট্যাব ইসিতে সরবরাহ করেছে। সিদ্ধান্ত হয়, যেসব এলাকায় ইভিএম ব্যবহার হবে সেখানে প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা এই ট্যাব ব্যবহার করবেন এবং কেন্দ্রের ফল দ্রুত সন্নিবেশ করে তা ট্যাবের মাধ্যমে রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং ইসি সচিবালয়ে পাঠাবেন।

কিন্তু ইসি কোনো ধরনের পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণ না করেই ২৪ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে গোপালগঞ্জ সদর ও মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় ইভিএমের সঙ্গে ট্যাব সরবরাহ করে। ইসি সচিবালয় সূত্র জানায়, রিটার্নিং কর্মকর্তা নির্বাচনের ফল সংগ্রহ করতে গিয়ে দেখেন, ট্যাবের মাধ্যমে পাঠানো ফল ভুল। শেষ পর্যন্ত ট্যাবের মাধ্যমে পাঠানো তথ্য বাতিল করে পুরোনো পদ্ধতিতে ফল সংগ্রহ করা হয়। যে কারণে এই দুটি উপজেলার ফল ঘোষণা করতে বিলম্ব হয়।

এই ঘটনার পর ইসি ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে ট্যাবের ব্যবহার বাতিল করে। ২৮ মার্চ ইসি সচিবালয়ের এক চিঠির মাধ্যমে এই সিদ্ধান্ত মাঠ প্রশাসনকে জানানো হয়। আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এই ধাপে ময়মনসিংহ সদর, পটুয়াখালী সদর, বাগেরহাট সদর, কক্সবাজার সদর, ফেনী সদর ও মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় ইভিএমের সঙ্গে ট্যাব ব্যবহার করার কথা ছিল।

ইসি সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের কারও কারও মতে, ট্যাব ব্যবহারের আগে পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণ করার প্রয়োজন ছিল। প্রয়োজন ছিল সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণেরও। কিন্তু ইসি থেকে এসবের কিছুই না করে অপরিকল্পিতভাবে ট্যাব কেনা হয়েছে। ইভিএমের বিষয়ে উৎসাহী কিছু কর্মকর্তা যন্ত্রটির সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য রাতারাতি ট্যাব কিনে তা মাঠ পর্যায়ে সরবরাহ করে।

কর্মকর্তাদের আরেকটি অংশের মতে, সব ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ভুল করতে পারেন না। ট্যাবের মধ্যেও সমস্যা আছে। ট্যাবটি দুই অঙ্কের হিসাব সঠিকভাবে সরবরাহ করে, তিন অঙ্কের হলেই হিসাব ভুলভাবে আসতে থাকে।

জানতে চাইলে কম্পিউটার সার্ভিসেস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মামলুক সাবির আহমেদ এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান।

নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ট্যাব ব্যবহারের আগে যাঁরা এটি চালাবেন, তাঁদের প্রশিক্ষণের দরকার আছে। সেটা যথাযথভাবে করা হয়নি বলেই ফল পাওয়া যায়নি। তবে ভবিষ্যতে অবশ্যই এটি ব্যবহার করা যাবে।

 

Facebook Comments

" জাতীয় খবর " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ