Foto

ইউরিনে ইনফেকশন হলে কী করবেন


ইউরিন ইনফেকশন একটি পরিচিত সমস্যা। পুরুষের তুলনায় নারীদের এই সমস্যা বেশি দেখা যায়। মানুষের শরীরের দুটি কিডনি, দুটি ইউরেটার, একটি ইউরিনারি ব্লাডার (মূত্রথলি) এবং ইউরেথ্রা (মূত্রনালি) নিয়ে মূত্রতন্ত্র গঠিত। আর এই রেচনন্ত্রের যে কোনও অংশে যদি জীবাণুর সংক্রমণ হয় তাহলে সেটাকে ‘ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন’ বলা হয়।


ইউরিন ইনফেকশন হলে কিছু লক্ষণের মাধ্যমে সেগুলো প্রকাশ পায়। যেমন-

১. প্রস্রাবে দুর্গন্ধ হয়।

২. প্রস্রাব গাঢ় হলুদ বা লালচে হয়ে যায়

৩. প্রস্রাবের সময় জ্বালাপোড়া বা ব্যথা অনুভূত হয়

৪. একটু পর পর প্রস্রাবের বেগ অনুভব করলেও ঠিক মতো প্রস্রাব হয় না

৫. তলপেটে বা পিঠের নিচের দিকে তীব্র ব্যথা হয়

৬. বমি ভাব বা বমি হয়

৭. সারাক্ষণ জ্বর জ্বর ভাব বা কাঁপুনি দিয়ে ঘন ঘন জ্বর আসে

ইউরিন ইনফেকশন এমনই এক সমস্যা যা একবার হলে বারবার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। ঘন ঘন ওষুধ না খেয়ে বরং ঘরোয়া কিছু প্রতিকারের মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে। যেমন-

১. ইউরিন ইনফেকশন হলে অনেক চিকিৎসকই রোগীদের পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি খাওয়ার পরামর্শ দেন। এটি মুত্রথলি ভাল রাখে এবং প্রস্রাবের সময় জ্বালা ভাব কমাতে সহায্য করে। ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতেও সহায়তা করে ভিটামিন সি। তাই ইউরিন ইনফেকশন হলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত।

২. প্রতিদিন অন্তত তিন লিটার পানি পান করা উচিত। বিশেষ করে প্রসাবে হলুদ ভাব দেখা গেলেই দেরি না করে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা উচিত।

৩. আনারসে ব্রোমেলাইন নামক উপকারী এনজাইম থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে, ইউরিন ইনফেকশনে আক্রান্ত রোগীদের সাধারণত ব্রোমেলাইন সমৃদ্ধ অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। তাই ইউরিন ইনফেকশন হলে প্রতিদিন এক কাপ আনারসের রস খান।

৪. ইউরিন ইনফেকশন হলে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে সংক্রমণ কিডনিতে ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি থেকেই যায়। তাই যত দ্রুত সম্ভব এটি নিরাময় করা উচিত। আধা চামচ বেকিং সোডা এক গ্লাস পানিতে ভাল করে মিশিয়ে দিনে একবার করে খেলে প্রস্রাবের সময় জ্বালা বা ব্যথা ভাব অনেকটাই কমে যাবে।

Facebook Comments

" লাইফ স্টাইল " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ