Foto

আ.লীগের পালানোর অভ্যাস নেই, আছে বিএনপির


আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং দলের অন্যতম মুখপাত্র হাছান মাহমুদ বলেছেন, আওয়ামী লীগের পালানোর ইতিহাস নেই। দেশ ছেড়ে পালানোর অভ্যাস আছে বিএনপির। ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশে দলের নির্বাচন পরিচালনা কার্যালয়ে দলের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে হাছান মাহমুদ এ মন্তব্য করেন।


হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান রাজনীতি করবেন না, এই কথা বলে মুচলেকা দিয়ে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। এখন পর্যন্ত মামলার আসামি হওয়ার পরে মামলা মোকাবিলাও করেননি। বিএনপির আরও বহু নেতা ২০০৬-২০০৮ সাল থেকে পলাতক। এবার ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পর জনগণ বিএনপির নেতাদের পালাতে দেবে না। বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীসহ বিএনপির নেতাদের অনুরোধ করব, আপনারা দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করবেন না।

ইচ্ছাকৃতভাবে বিএনপি নেতাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হচ্ছে—দলটির নেতা রুহুল কবির রিজভীর এ অভিযোগের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি মনোনয়ন দিয়েছে বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি, দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ও ঋণখেলাপিদের। প্রতিটি মনোনয়নপত্র রিটার্নিং কর্মকর্তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যেগুলো বৈধ, সেগুলোকে বৈধ ঘোষণা করেছেন। যেগুলো বাতিলযোগ্য সেগুলোকে বাতিল করেছেন। বাতিল কী কারণে করা হচ্ছে, সেটিও সুনির্দিষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু বিএনপি চায় তাদের দণ্ডিত আসামিদের মনোনয়নপত্র বৈধ হোক। বিভিন্ন কারণে অন্যান্য দলেরও মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। বিএনপি দুর্নীতিবাজদের মনোনয়ন দিয়ে স্লোগান দিচ্ছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে।

সাবেক মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির রাজনীতি অপপ্রচারের ওপর প্রতিষ্ঠিত। তারা প্রতিনিয়ত সংবাদ সম্মেলন করে অপপ্রচার করার পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে ব্যবহার করে সরকারের বিরুদ্ধে, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে এবং নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে আসছে। নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি অপপ্রচার আরও বাড়িয়েছে। এসব অপপ্রচার বিভিন্ন ভুয়া ফেসবুক আইডি, ভুয়া নিউজ পোর্টাল ও দেশের জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যমের হুবহু নিউজ পোর্টাল খুলে তারা সেই অপপ্রচার চালাচ্ছে। তিনি অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেওয়া জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পীদের নামে বিএনপি নিউজ পোর্টাল খুলেও অপপ্রচার চালাচ্ছে। এভাবে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চরম অপচেষ্টা বিএনপি চালিয়ে আসছে। এসব অপপ্রচার চালানোর ক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ইউআরএল (ওয়েব ঠিকানা) ব্যবহার করে। একটি বন্ধ করলে আরেকটি দিয়ে শুরু করে। লন্ডন, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে এসব কর্মকাণ্ড বেশি করে চালানো হচ্ছে এবং সাম্প্রতিক সময়ে ধর্মকে ব্যবহার করেও অতীতের মতো অপপ্রচার চালানো শুরু করেছে।

বিএনপির নেতাদের উদ্দেশে হাছান মাহমুদ বলেন, নিজেরা যে অপকর্মগুলো করছেন, সেগুলো বন্ধ করুন। অন্যদের ওপর নিজেদের অপকর্ম চাপানোর চেষ্টা থেকে বিরত থাকুন। আওয়ামী লীগ অপপ্রচার করে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যেভাবে বদলে গেছে, আমরা সেটাই প্রচার করি।

 

Facebook Comments

" রাজনীতি " ক্যাটাগরীতে আরো সংবাদ